শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১০:১১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বানারীপাড়ায় এমপি শাহে আলমের দিকনির্দেশনায় রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির ত্রাণ বিতরণ জামালপুর শহর আওয়ামী যুবলীগ ৭ং ওয়ার্ড ইউনিট কমিটি গঠণে কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত বানারীপাড়া পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডে দূর্বার গতিতে ছুটে চলছেন রাহাদ সুমন -সময় প্রবাহ নিউজ বিবিয়ানা মডেল কলেজ বিজয়ী,৪১ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ-২০২০ ভালোবাসার প্রতিদান জনসেবার মাধ্যমে দিতে চাই।মোতালেব দেওয়ান। ফ্রান্সে মহানবীর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে ফুলপুরে বিক্ষোভ মিছিল আগামীকাল ঈদে-মিলাদুন্নবী, অনুষ্ঠিত হবে শমশেরনগর ইউপি তালামীযের ঈদে-মিলাদুন্নবী মোবারক জছনে জুলুছ আসহাবে সুফফা ইসলামী সুন্নী সমাজ কল্যাণ সংস্হার পক্ষ থেকে ঈদ-এ- মিলাদুন্নবী উদযাপন। কুড়িগ্রামে ট্রেজারীতে সংরক্ষিত অচল ঘোষিত ও অব্যবহারকৃত প্রায় দেড় কোটি টাকার স্ট্যাম্প ভষ্মিভুত বিভাগীয় কমিশনার, সিলেট জনাব মোঃ মশিউর রহমান এনডিসি মহোদয় কতৃক মৌলভীবাজার জেলায় হুইল চেয়ার বিতরণ।

শহরের এক রাতের অভিজ্ঞতা

জাহিদ হোসাইন মোহাম্মদপুর প্রতিনিধি
পুরান ঢাকার ওদিকটায় ঘুরাঘুরি করছিলাম। নয়াবাজার এলাকায় বাইক পার্ক করলাম ছবিতে দেখানো দোকানের সামনে…

প্রথমে একটু দোটানায় পরে গেছিলাম যে এগুলা কিসের দোকান। একটু কাছে যেতেই একটা গন্ধ নাকে লাগলো, সেটা হচ্ছে এগুলা বিভিন্ন কমিউনিটি সেন্টার বা বিয়ে বাড়ির উচ্ছিষ্ট খাবার ! এগুলো কিন্তু মোটেও খাওয়ার জন্য উপযুক্ত নয়, কারণ দুর থেকেই অলরেডি পঁচা গন্ধ আসতে শুরু করেছে।

বিক্রেতাকে জিজ্ঞাসা করলাম, এই খাবার কি হিসেবে বেচেন?

দোকানদারঃ প্লেট হিসাবে বেচি ভাই
আমিঃ কত টাকা?
দোকানদারঃ ঠিক নাই। ৫, ১০, ১৫, ২০ যে যেরকম নেয়।

আমি আর কোনো কথা বললাম না। কাজ শেষ করে এসে দাঁড়ালাম, দেখলাম এক বৃদ্ধ চাচা রাস্তায় ঠেলাগাড়িতে আমড়া, জাম্বুরা বিক্রি করে, সে এসে এক প্লেট উচ্ছিষ্ট খাবার নিলো…

উনি বুঝতে পারছেন খাবার ভালো না, তবুও খাচ্ছেন। কারণ ১০ টাকায় পেট ভরার মত আর কিছু সামনে নাই। আরেক রিকশাওয়ালা আসলো, সেও নিলো…

আসলে মানুষের প্রয়োজন মানুষকে কোথায় নিয়ে যেতে পারে! ভেবে বের করা অসম্ভব !

যদি সবার ভেতরে নুন্যতম বিবেকবোধ থাকত, তাহলে হয়ত এই লোকগুলাকে পঁচাবাসি খাবার খেতে হত না। আমরা যদি বিবেক করে এই সমস্ত খেটে খাওয়া লোকগুলোকে ঠিকঠাক মজুরি দেই, তাহলে অন্তত এদের আর দুপয়সা বাঁচানোর তাগিদে পঁচা খাবার খেতে হবেনা।

কেনো এই কথা বললাম?

আমরা রিকশায় উঠার সময় দরদাম করি, কিন্তু কখনো ভেবে দেখিনা, ২০ টাকা ভাড়ায় রিকশায় উঠলাম, ওইটুকু জায়গা আমি রিকশা চালিয়ে গেলে কত টাকার পানি ও খাবার আমার লাগত !

জাম্বুরা কিনতে গেলে বলি, ১০ টাকার জাম্বুরা এত কম কেনো? অথচ তাদের সারাদিন রোদে পুড়ে কি পরিমান কায়িক পরিশ্রম হয় তা যদি ভাবেন তাহলে আর মনে এরকম প্রশ্ন আসবেনা।

অথচ একজন পেশাদার ভিক্ষুকের ১ ঘন্টার আয় অনায়াসে ১০০টাকা। যেটা আমরাই দেই…

মোটকথাঃ ভিক্ষা দেয়া বন্ধ করেন, পরিশ্রমীকে সাহায্য করেন 🙂

(তবে সামান্য কিছু লোক আছে, যাদের উপায় নাই বলেই তারা ভিক্ষা করে। সেটা ৫% এর বেশী হবেনা।)

সংবাদটি ফেসবুকে শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017 আজকের তাজা খবর
Design & Developed BY Suhag Rana