শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১০:৪৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
বানারীপাড়ায় এমপি শাহে আলমের দিকনির্দেশনায় রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির ত্রাণ বিতরণ জামালপুর শহর আওয়ামী যুবলীগ ৭ং ওয়ার্ড ইউনিট কমিটি গঠণে কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত বানারীপাড়া পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডে দূর্বার গতিতে ছুটে চলছেন রাহাদ সুমন -সময় প্রবাহ নিউজ বিবিয়ানা মডেল কলেজ বিজয়ী,৪১ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ-২০২০ ভালোবাসার প্রতিদান জনসেবার মাধ্যমে দিতে চাই।মোতালেব দেওয়ান। ফ্রান্সে মহানবীর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে ফুলপুরে বিক্ষোভ মিছিল আগামীকাল ঈদে-মিলাদুন্নবী, অনুষ্ঠিত হবে শমশেরনগর ইউপি তালামীযের ঈদে-মিলাদুন্নবী মোবারক জছনে জুলুছ আসহাবে সুফফা ইসলামী সুন্নী সমাজ কল্যাণ সংস্হার পক্ষ থেকে ঈদ-এ- মিলাদুন্নবী উদযাপন। কুড়িগ্রামে ট্রেজারীতে সংরক্ষিত অচল ঘোষিত ও অব্যবহারকৃত প্রায় দেড় কোটি টাকার স্ট্যাম্প ভষ্মিভুত বিভাগীয় কমিশনার, সিলেট জনাব মোঃ মশিউর রহমান এনডিসি মহোদয় কতৃক মৌলভীবাজার জেলায় হুইল চেয়ার বিতরণ।

ফুলপুরে অপরিকল্পিত বালু উত্তোলন নষ্ট হচ্ছে রাস্তা রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার।

 গোলাম মোস্তফা ফুলপুর প্রতিনিধি:

বালু ব্যবসায়ীদের লোভের থাবায় এখন ক্ষতবিক্ষত ফুলপুর উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের বড়ইকান্দী গুদারাঘাট সংলগ্ন কংস নদের বুক। অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন,ও ট্রলিযোগে বালু পরিবহনের কারনে নষ্ট হচ্ছে তালদীঘি মুন্সিরহাট জিসিসি রাস্তাটিও। জানা যায় যে বড়ইকান্দী গুদারাঘাট সংলঙ্গ বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে গড়ে উঠেছে অপরিকল্পিত বালুমহাল লক্ষ লক্ষ ঘনফুট সোমেশ্বরীর মোটা লাল বালু কংস নদ বেয়ে বোলগেট ট্রলারে করে এনে একশ্রেনীর অসাধু ব্যবসায়ী দু’ফসলি আবাদী জমিতে স্তুপিকৃত রেখে মোটা দামে বিক্রি করে কামিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। অন্যদিকে বালু পরিবহনের কারণে নষ্ট হচ্ছে নদী তীরবর্তী এলাকার পরিবেশ।চলাচলের অনুপযোগী হয়ে যাচ্ছে রাস্তাঘাট।বালু ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্যে একদিক থেকে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীও হুমকির মুখে পড়েছে।সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব। প্রশাসনের তদারকির অভাবে এখন কংস নদটিও দিন দিন অস্তিত্বহীন হয়ে পড়ছে।স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায় অপরিকল্পিতভাবে ট্রলি চলার কারণে ক্ষতির মুখে পড়েছে তের কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত তালদীঘি মুন্সিরহাট জিসিসি রাস্তাটি,এবং এক কানা কড়িও রাজস্ব পাচ্ছে না সরকার। ছোট্ট ছোট্ট ট্রলিযোগে সদ্য নির্মিত তালদীঘি মুন্সিরহাট জিসিসি রাস্তা দিয়ে বেপরোয়া গতিতে এ বালু ফুলপুর তারাকান্দা সদরে এনে চড়া দামে বিক্রি করছে মজুদকারীরা।বর্ষাকালে বালু এনে সারা বছর এখানে মজুদ করে লক্ষ লক্ষ টাকা কামিয়ে নিলেও সরকার এক কানা কড়িও ট্যাক্স পাচ্ছে না,পক্ষান্তরে ১৩ কোটি টাকার রাস্তাটি ধ্বংশে এই বালুভর্তি ট্রলি ব্যাপক অবদান রাখছে বলে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন। বালুমহাল লুটেপুটে খাচ্ছেন রাজনৈতিক দলের প্রভাবশালী নেতাকর্মীরা। ক্ষমতাসীনদের সিন্ডিকেট বালুমহালের দখল নেয়।রাজনৈতিক প্রশ্রয়ে আইনের কোনো তোয়াক্কা করছেন না তারা। ইজারাবহির্ভূত স্থান থেকে বালু উত্তোলন তো মামুলি ব্যাপার!এর ফলে সরকার কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।যেখান-সেখান থেকে বালু তোলার কারণে নদীভাঙনও বাড়ছে।বিরূপ প্রভাব পড়ছে পরিবেশের ওপরও।ড্রেজার ও পাওয়ার পাম্প লাগিয়ে বালু উত্তোলনে বিধিনিষেধ থাকলেও কিছুরই তোয়াক্কা করছে না বালুখেকোরা। স্থানীয় সাধারণ মানুষ ও জনপ্রতিনিধিরা নানা কারণে বালু ব্যবসায়ী প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছেন না।তবে স্থানীয়দের মনে করেন এভাবে অপরিকল্পিত বালু তোলার কারনে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত রাস্তাটি অচিরেই নষ্ট হয়ে যাবে তাই অভিজ্ঞমহল অনতি বিলম্বে এ অবৈধ বালু ব্যবসা নিয়ন্ত্রণে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন সহ উপজেলা প্রশাসন ফুলপুর ময়মনসিংহ কে আশু ব্যবস্থা গ্রহন করত সদ্য নির্মিত দৃষ্টি নন্দন এ রাস্তাটি সংরক্ষণের দাবী জানিয়েছেন।বড়ইকান্দী ও বন্ধকোনা মৌজায় ইতিপূর্বে উপজেলা প্রশাসন ফুলপুর প্রস্তাবিত বালু মহাল ঘোষণা করে ইজারা প্রদানে লক্ষ লক্ষ টাকা রাজস্ব আয়ের সুব্যবস্থা করতে জোর দাবী জানিয়েছেন সচেতন মহল। বড়ইকান্দী বন্ধকোণায় প্রস্তাবিত বালু মহাল বাস্তবায়িত হলে রাস্তা সংরক্ষণ,রাজস্ব আয় সহ শত শত শ্রমিকের কর্ম সংস্থানের ব্যবস্থা হবে বলে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ আশা প্রকাশ করেছেন।এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশুদৃষ্টি কামনা করেছেন এলাকার সচেতন জনগন। নদী বাঁচাতে বালু উত্তোলন না করার ঘোষণা দিলেও এ নির্দেশ মাঠ পর্যায়ে মানছেন না কেউ।ভূমি মন্ত্রণালয় এ বছরের গোড়ার দিকে নদী থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন পুরোপুরি নিষিদ্ধ করলেও বাস্তবে এর কোনো প্রতিফলন নেই।

সংবাদটি ফেসবুকে শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017 আজকের তাজা খবর
Design & Developed BY Suhag Rana