শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ১২:২৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বানিয়াচংয়ে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে দু’পক্ষের ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে নারী-পুরুষসহ আহত ১৫জন।।মুমূর্ষু অবস্থায় একজনকে সিলেট প্রেরন।। বৃক্ষপ্রেম থেকে সফল নার্সারি ব্যবসায়ী, বকুল মিয়ার দুঃখ সংগ্রাম সফলতা ও জীবনের গল্প। আবারো প্রমান মিললো রমজান রাত প্রায় ৩ টা নাগাত ! মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য। সাপাহারে পুলিশের উদ্যোগে পথচারীদের মাঝে ইফতার বিতরণ বাংলাদেশে এই প্রথম বৌদ্ধ সমাজে ২০ কোটি টাকা বাজেটে ৫ তলা বিশিষ্ট সংঘ হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্থর বানিয়াচংয়ে বৃদ্ধ‘র মৃত্যু রহস্য ঘিরে ধু্ম্রজালের সৃষ্টি ফুলপুরে দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে মানবতার পরিচয় দিল ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। কুড়িগ্রামে কৃষক লীগের ৪৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত “আয়োজন করা হলো অনলাইন সিলেটি কুইজ প্রতিযোগিতা-২.০” সংবাদ সম্মেলন।। গ্রাম্য মাতব্বরদের ইন্ধন,বানিয়াচংয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী আহত। বসতঘর ভেঙ্গে দেওয়ায় খোলা আকাশের নীচে মানবেতর জীবনযাপন।

কুড়িগ্রাম হাসপাতালে ঔষধ সরবরাহ দরপত্র সর্বনিম্ন দরদাতাকে আটকিয়ে দরপত্র প্রত্যাহারের সাক্ষর নিয়েছে সিন্ডিকেট চক্র

আনোয়ার হোসেন, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রাম ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে একটি সিন্ডিকেট চক্র এমএসআর এর টেন্ডারের সর্বনিম্ন দরদাতাকে নাটোর জেলা থেকে সমঝোতার জন্য ডেকে এনে ভয়ভীতি দেখিয়ে দরপত্র প্রত্যাহারে স্বাক্ষর করে নিয়েছে। অসহায় ঐ ঠিকাদার বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেও কোন সুরাহা পাচ্ছে না। সিন্ডিকেট চক্রটি ঐ ঠিকাদারকে কুড়িগ্রামে ঢুকতে দিচ্ছে না। প্রতিনিয়ত টেলিফোনে নানা রকম হুমকি দিচ্ছে। সিন্ডিকেট চক্রটি দীর্ঘদিন থেকে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালের এমএসআর এর টেন্ডার জোর করে বাগিয়ে নিয়ে নিম্ন মানের ঔষধ ও বিভিন্ন সামগ্রী সরবরাহ করে আসছে । জানা গেছে প্রায় দু মাস আগে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এমএসআর টেন্ডারের জন্য দরপত্র আহবান করে। যার ম্মারক নং-জেনাঃহাসঃকুড়ি/এম এস আর/দরপত্র/ হিসাব ২০২০-২০২১/৯৫ তারিখ ৩০/১/২০২১। ৬টি গ্রুপে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকার টেন্ডারের মোট ১২৫টি আইটেমে বিভিন ঔষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী সরবরাহের নিমিত্তে টেন্ডার আহবান করে। গত ১মার্চ ৯টি দরপত্র দাখিল করা হয়। একটি দরপত্র বাতিল হয়ে যায়। সর্বনিম্ন দরদাতা ৩টি প্রতিষ্ঠান হলো নাটোরের মেসার্স এমদাদুল হক ও মেসার্স এইচটি ড্রাগ হাউস এবং রাজশাহীর মেসার্স মাইক্রো ট্রেডাস । এর মধ্যে মেসার্স এমদাদুল হক ও এইচটি ড্রাগ হাউস মোট ১২১টি আইটেমের আর মেসার্স মাইক্রো ট্রেডাস মাত্র ৪টি আইটেমে সর্বনিম্ন দরদাতা হয়েছে। টেন্ডারে প্রথম দুটি প্রতিষ্ঠান শতকরা ৩১ শতাংশ কম দর দাখিল করেছিল। টেন্ডার কমিটি দরপত্র মূল্যায়ন করে সর্বনিম্ন দরদতাকে অনুমোদন দেয়ার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের ডিজি বরাবর পাঠিয়েছেন। বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি দীর্ঘদিন হাসপাতালের টেন্ডার সিন্ডিকেট চক্রটি। তারা বার বার কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ মোঃ নাবিউর রহমানকে পুন টেন্ডার করার জন্য চাপ দিয়েও ব্যর্থ হয়। এতে সিন্ডিকেট চক্রটি বেপরোয়া হয়ে উঠে। সর্বনিম্ন দরদাতাকে টেন্ডার প্রত্যাহারের জন্য টেলিফোনে নানা রকম হুমকীর পাশাপাশি সমঝোতার প্রস্তাব দেয়। দুই সপ্তাহ পর সর্বনিম্ন দরদাতা ইমদাদুল হক সমঝোতার জন্য কুড়িগ্রামে আসলে সিন্ডকেট চক্রটি তাকে আটকিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে দরপত্র প্রত্যাহারের জন্য সাদা প্যাডে স্বাক্ষর নিয়ে কুড়িগ্রাম থেকে বের করে দেন। সাদা প্যাডটিতে দরপত্র প্রত্যাহারের আবেদন করে তত্ববধায়ককে ডিজি বরাবর প্রেরণে বাধ্য করেন। ঠিকাদার যেন এ ব্যাপারে কোথাও যেন অভিযোগ না করে সে জন্য মোবাইলে জীবন নাশের হুমকি অব্যাহত রয়েছে। ঠিকাদার এমদাদুল হক টেলিফোনে প্রতিনিধিকে জানান, তিনি উত্তরাঞ্চলে বিভিন্ন হাসপাতালে এমএস আর এর কাজ দীর্ঘদিন ধরে করে আসছেন । কুড়িগ্রামে এমএসআর এর টেন্ডারে শতকরা ৩১ভাগ কম দিয়ে সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে স্বীকৃতি পাই। সিন্ডিকেট চক্রটি আমার সাথে সমঝোতা করার জন্য কুড়িগ্রামে আসার অনুরোধ করে। আমার মেয়ে মুমূর্ষ অবস্থায় ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তাদের ডাকে সারা দিয়ে অসুস্থ মেয়েকে ফেলে সোমবার কুড়িগ্রামে এসেই বিপদে পড়ি। আমাকে আটকিয়ে জীবনের হুমকি আর নানা চাপে জোর করে প্যাডে টেন্ডারের প্রত্যাহার পত্রের সহি নিয়েছে। আমি এ অন্যায়ের প্রতিকার চাই। আমি যেন কোথাও অভিযোগ না করি সেজন্য তারা প্রতিনিয়ত টেলিফোনে নানা হুমকি দিচ্ছে। এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম হাসপাতালে তত্বাবধায়ক ডাঃ মোঃ নবিউর রহমান জানান, এবারের এম এস আর এর টেন্ডারের সর্বনিম্ন যিনি দরদাতা হয়েছিলেন তার প্রশাসনিক অনুমোদনের জন্য ডিজি অফিসে পাঠিয়েছি। আমার কাছে পাবলিক প্রকিয়মেন্ট রুল ২০০৬/২০০৮ এই অনুযায়ী গাইড লাইন দেয়া আছে। আমি এর বাইরে যাব না। টেন্ডার প্রত্যাহারের আবেদন সম্পর্কে তিনি মন্তব্য করতে রাজী হননি।

সংবাদটি ফেসবুকে শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017 আজকের তাজা খবর
Design & Developed BY Suhag Rana